আজ ২৪শে জানুয়ারি ২০১৮, ১১ই মাঘ ১৪২৪, ৮ই জমাদিউল-আউয়াল ১৪৩৯

প্রতারক মোহাইমেন ওরফে সোহেল অমিতাভ

জানুয়ারি ৭, ২০১৮

প্রতারক মোহাইমেন ওরফে সোহেল অমিতাভ
ফেসবুক আইডি ও লিঙ্ক
প্রতারক মোহাইমেন ওরফে সোহেল অমিতাভ
মানুষকে প্রায়ই বলতে শুনি – এই লোকে আপনাকে কেমনে ঠগাইলো? যারা এমন প্রশ্ন করে তারা সবাই বাংলাদেশী। তারা বাংলাদেশে বাস করে। বাংলাদেশ একটি প্রতারকের স্বর্গ । তারাও প্রতারিত হয় প্রতিদিন। তাদের নিঃশব্দ প্রতারিত হওয়া আর তা সহ্য করার জন্যই আমি বা আমার মত মানুষ ঠগে। একজন কবি এখান থেকে ওখান থেকে এ কবি সে কবির কবিতার লাইন থেকে জোড়াতালি দিয়ে নিজে কিছু গুজে একটি কবিতা দাঁড় করিয়ে দেয় তারপর একটি ছবি পোষ্ট করে দেয় তার ছায়ার তারপর ৯০০-১০০০ মেয়ে, মহিলা, পুরুষে লাইক দিতে থাকে। যারা লাইক দেয় তাদের মধ্য রয়েছে কবি, সাহিত্যিক, ফটোগ্রাফার, শিক্ষক, সাংবাদিক, রাজনীতিবিদ, বুদ্ধিজীবি,ছাত্র, বুদ্ধিমান ও আমার মত নির্বোধ প্রতারণার শিকারেরা।

যাই হোক আজ আমি যে প্রতারকের কথা লিখছি আমি সে প্রতারকের শিকার নই। তবে বহু মানুষকে সে প্রতারণা করেছে এবং সফল্ভাবে প্রতারণা করে এখন অবসর জীবনযাপন করছে। যারা বলে প্রতারণা করলে বা লোক ঠগালে আল্লাহ্‌ বিচার করবে । তারা ভুল বলে। প্রতারক মোহাইমেন ওরফে কবি সোহেল অমিতাভ ভাল আছে। সুখে আছে। সে যাদের টাকা মেরেছে তারা আমার মত কষ্টে ছিল, বা আছে। কোন পাপী, মিথ্যুক, ধোঁকাবাজ, আয়েশি, প্রতারক ও তার পরিবার পরিজন কোনদিন কষ্টে থাকেনা। যাদের শিকার বানায় তারা কষ্টে থাকে। ওরা সুখে থাকবে বলেই তো বিভিন্ন অজুহাতে টাকা চায় তারপর ফেরত দেয়না। স্বাভাবিকভাবে হজম করে ফ্যালে। যেন এই টাকাগুলো ওর নিজের বা জমিদারী থেকে পেয়েছে। প্রতারকদের ও তাদের পরিবারের সদস্যদের ইহজনমে কোন শাস্তি হয়না। ওরা মানুষকে আর্থিক কষ্ট দেয়, মানসিক কষ্ট দেয় এবং সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করে নিজেদের চরিত্র, ভাল মানুষের মুখোশের আড়ালে  লুকাবার জন্য আর স্বাভাবিকভাবে তাদের প্রতারণা কর্মকান্ড অব্যহত রেখে নিরাপদে থাকে। বরনীয়ভাবে প্রতারকেরা সমাজে প্রতারণা কর্মাকন্ড চালিয়ে যায়। ক্ষমতাশালীদের পদলেহন করে আর যাদের দুর্বল মনে করে তাদের সাথে মিথ্যাচার করে নানাভাবে টাকা হাতিয়ে নেয়। ভাবে ওরা লজ্বাই কেউ কিছু বলার সাহস পাবেনা আর অবিরত প্রতারণা চলতে থাকবে। সমাজে মাথা উঁচু করে বড় বড় বুলি আওড়ে, প্রেম করে, সাধু সেজে প্রতারক ঘুরে বেড়াবে । সবার সাথে সেলফি দিবে ফেসবুকে আর কিছু মানুষ নীরবে চোখের জল ফেলবে আর নিজেদের ভাগ্যকে কষাঘাত করবে। আর তারা যদি প্রতারকের নাম বলে তাহলে কিছু মানুষ এসে তাদের বলবে – ইস তুমি কি বোকা – ধরা খাইছো ! প্রতারক আর প্রতারকের পরিবার পরিজন সুখে শান্তিতে খাবে, ঘুরবে, দামী দামি কাপড়চোপড় পড়ে, দামী মোবাইল হাতে জন্মদিনের কেক কাটবে অন্যদের থেকে হাতিয়ে নেওয়া টাকায় আর দেশেবিদেশে ঘুরে বেড়াবে।

প্রতারক মোহাইমেন ওরফে সোহেল অমিতাভ বহু মানুষের ক্ষতি করেছে। তারা আমার পরিচিত। যাদের ক্ষতি হয়ে গেছে তাদের নাম বলে প্রতারণার যারা শিকার তাদেরকে আমি আরো কষ্ট দেবোনা । যে ক্ষতি করেছে, যে কষ্ট দিয়েছে শুধু সেই প্রতারকের ছবি এখানে পোষ্ট করছি সবাইকে সতর্ক করার জন্য । প্রতারক মোহাইমেন ওরফে সোহেল অভিতাভ সারাজীবন প্রতারণা করেই জীবিকা নির্বাহ করেছে। প্রতারক মোহাইমেন ওরফে সোহেল অভিতাভ তার যৌবনে প্রতারণার মাধ্যমেই জীবিকানির্বাহ করেছে এখন অবসর জীবনে সুযোগ পেলেই প্রতারণা করবে সেজন্য এই সম্পর্কে জানার সাথে সাথে আমি তার সম্পর্কে লিখছি যাতে আর একজন মানুষও এই পিশাচ দ্বারা প্রতারিত না হয়।  যারা চুরি করে তাদের যেমন হাত কেটে দেওয়া হয় ঠিক তেমনি যারা মিথ্যা কথা বলে ঋন হিসাবে টাকা নিয়ে পরিশোধ করেনা, তাদের জিহ্বা কেটে দেওয়া উচিৎ যাতে তারা আর কোনদিন মিথ্যা বলতে না পারে।

প্রতারক মোহাইমেন ওরফে সোহেল অভিতাভের দ্বারা প্রতারিত হয়েছেন এমন একটি পরিবারের একজন সদস্যের বক্তব্য তুলে ধরছিঃ

এই সেই বাটপার পৃথিবীর জঘন্যতম প্রতারকদের একজন। মধুর বুলি শুনিয়ে দামি গিফট প্রদান করে, কবিতা শুনিয়ে, আপা ডেকে, ভাই ডেকে মানুষের সংসারে সুঁই হয়ে ঢুকে সর্বস্বান্ত করে ফাল হয়ে বের হয়। নিজেকে কখনো কবি, কখনো সাংবাদিক, অখ্যাত প্রতিষ্ঠানের এম ডি বলে প্রচার করে বেড়ায়। সরল বিশ্বাসে যারাই তাকে বিশ্বাস করেছে, তাঁদের প্রত্যেকের সর্বনাশ করে ছেড়েছে। কতো মানুষকে করেছে নিঃস্ব, রিক্ত, কতো সংসারে আগুন লাগিয়েছে, কতো সন্তানদের হক মেরে ফুর্তি করেছে তার ইয়ত্তা নেই। এই শয়তান প্রতারককে সবাই চিনে রাখুন কারণ কখন যে কাকে টার্গেট করে কোনও ঠিক নেই। সবাই সাবধান !!!!!”

আসুন আমরা এই প্রতারকের চেহারা ভাল করে দেখি।

আয়শা মেহের।
সম্পাদিকা
প্রবাসনিউজ২৪
টরেন্টো, কানাডা ।

প্রতারক মোহাইমেনের দ্বারা যারা প্রতারিত হয়েছে তারা শান্তনা পাবার জন্য বলে প্রতারণা করার জন্য তার কুষ্ট রোগ হয়েছে । আসলে অনেক ভাল মানুষেরও কুষ্ট রোগ হয়

 

সংবাদটি পড়া হয়েছে ১০১ বার

( বি: দ্র: প্রবাস নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম -এ প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও, কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। কপিরাইট © সকল সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত প্রবাস নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম )

আপনার ফেসবুক একাউন্ট ব্যবহার করে মতামত প্রদান করতে পারেনঃ

x
সর্বশেষ